ইস্ট্রোজেন হরমোন যুক্ত খাবার

500.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913640

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

999 in stock

SKU: (2) মেয়েদের সেক্সে রাজি করানোর মিস মি ঔষধ Categories: , Tag:

Description

ইস্ট্রোজেন হরমোন যুক্ত খাবার ঋতুচক্র হওয়ার পর বা মেনোপজ যখন হয় তখন স্বাভাবিকভাবে নারীর দেহে ইস্ট্রোজেন হরমোন এর ঘাটতি লক্ষ্য করা যায়। তখন অনেক নারীরা বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যায় পড়েন। তারা এটাকে শারীরিক অসুস্থতা বলে চালিয়ে দেন। এসব অসুস্থতার মূল কারণ হচ্ছে ইস্ট্রোজেন হরমোন। ডাক্তারদের মতে ঔষধ খেয়ে ইস্ট্রোজেন হরমোন বৃদ্ধির চেয়ে, ইস্ট্রোজেন হরমোন বৃদ্ধিকারক খাবার খাওয়া উচিত। আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কন -ডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পু -শি  কিনতে এখনই কিনুন

ইস্ট্রোজেন হরমোন যুক্ত খাবার

ফাইটোইস্ট্রোজেন যৌগটির প্রাকৃতিক উৎস হল ছোলা। একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, প্রতিদিন ১০০ গ্রাম ছোলা খেলে ইস্ট্রোজেনের পরিমাণ বাড়তে পারে প্রায় ৯৯৩ মাইক্রোগ্রাম। অবশ্য শুধু ছোলা নয়, রাজমা, মটরশুঁটি, বিন্‌স খেলেও একই রকম উপকার মেলে। চিজ়, দুধ, দই বা দুগ্ধজাত খাবারে সামান্য হলেও ইস্ট্রোজেন এবং প্রোজেস্টেরন রয়েছে।

প্রাকৃতিক ভাবে ইস্ট্রোজেন হরমোনের পরিমাণ বৃদ্ধি করে কোন কোন খাবারঃ

তিসি

মহিলাদের শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের ঘাটতি পূরণ করতে পারে তিসি বা ফ্ল্যাকসিড্‌স। ইস্ট্রোজেন হরমোনের উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে তিসি। এই বীজে রয়েছে ‘ফাইটোইস্ট্রোজেন’ নামক একটি যৌগ, যা ঋতুবন্ধ হয়ে যাওয়ার পর মহিলাদের স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস করে।

রসুন

ইস্ট্রোজেন হরমোন যুক্ত খাবার এর তালিকায় আরও একটি খাবার রয়েছে সেটি হচ্ছে রসুন। রসুন স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী। ইস্ট্রোজেন ও টেস্টোরেন দুই ধরনের হরমোনই বাড়াতে রসুন দারুণ কার্যকারী। এই পর্যন্ত বিভিন্ন প্রাণীদের উপর গবেষণা করে পাওয়া গেছে রসুন রক্তে ইস্ট্রোজেনের মাত্রাকে বাড়িয়ে তোলে।

তিল

তিসির মতো এই খাবারটিও শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোন উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। ১০০ গ্রাম তিল বীজে ‘লিগন্যান‌স’এর পরিমাণ ০.৫ শতাংশ। সমীক্ষা অনুযায়ী, নিয়মিত তিল খেলে পিরিয়ডের পর নারীদের শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রিত থাকে।

বাদাম

কাজু, কাঠবাদাম, আমন্ড, আখরোট ও অন্যান্য যত রকমের বাদাম রয়েছে প্রায়ই সব বাদামের মধ্যেই রয়েছে লিনোলেইক অ্যাসিড, স্বাস্থ্যকর ফ্যাট ও ফাইটোইস্ট্রোজেন হরমোন। উক্ত উপাদানগুলো শরীরের হরমোন নিঃসরণ বাড়িয়ে ভারসাম্য বজায় রাখে। ফাইটোইস্ট্রোজেন হরমোন উপাদানটি নারীদের স্তন গঠনে ও নারীদের প্রজনন ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

সয়াবিন

সয়াবিন, টেম্পেহ ও সয়া খেলে স্বাভাবিকভাবে শরীরে প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে তা আমরা সবাই জানি। এরা পাশাপাশি সয়াবিন উল্লেখযোগ্য হারে ইস্ট্রোজেন হরমোনের পরিমাণ বৃদ্ধিতে সহায়ক। আপনার নিঃসন্দেহে এই খাবারগুলো খেতে পারেন। এগুলো খেলে প্রোটিন ও ইস্ট্রোজেন হরমোন ‍দুটোরই অভাব শরীর থেকে দূর হবে।

সবুজ শাক সবজি ও ফলমূল

প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় শাক সবজি রাখা উচিত। সবুজ শাক সবজি যেমন- গাজর, পালংশাক ও টমেটোর মতো সবজিগুলো শরীরে হরমোনের তারতম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। গাজরে ইস্ট্রোজেন সরাসরি উপস্থিত থাকে। যা স্তনদুগ্ধ উৎপাদনে সাহায্য করে। উক্ত কাজগুলো ছাড়াও সবুজ শাক-সবজি ফ্যাট টিস্যু গঠন ও স্তন গঠনে কার্যকর ভূমিকা রাখে।

ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা নারীদের শরীরে উঠানামা করে। তবে, বেশীরভাগ নারীর ক্ষেত্রে ইস্ট্রোজেন হরমোন কম হওয়ার সমস্যাটি লক্ষ্য করা যায়। সেসব মহিলারা তখন ঔষধের আশ্রয় নেয়। আপনারা উক্ত খাদ্যগুলো নিয়মিত খেলে ঔধষের আশ্রয় নিতে হবে না।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “ইস্ট্রোজেন হরমোন যুক্ত খাবার”

Your email address will not be published. Required fields are marked *