মাসিকের কতদিন পর সহবাস করলে সন্তান হয়

750.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

302 in stock

Description

মাসিকের কতদিন পর সহবাস করলে সন্তান হয় সম্পর্কে অনেকেই আমাদের কাছে বিস্তারিত জানার আগ্রহ প্রকাশ করে থাকেন তাই আজকের আর্টিকেল কি সাজিয়েছি এমনভাবে যে আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন মাসিকের কত দিন আর সহবাস করলে সন্তান জন্ম হয় এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি আপনি মাসিকের কতদিন পরে আসলে সহবাস করা উচিত এবং কতদিন পরে আপনি সঠিক অনুসারে সহবাস করতে পারবেন এ সম্পর্কে আমরা বিস্তারিত আলোচনা করব ইসলামিক ও পদ্ধতিতে কিভাবে কখন কোন টাইমে সহবাস করা উচিত সম্পর্কে আমরা জানবো। হিন্দু ধর্মে সহবাসের নিয়ম

 

মাসিকের কতদিন পর সহবাস করলে সন্তান হয়

সাধারণত আমাদের সাধারণত বৈজ্ঞানিক ও ভাষ্যমতে যখন মাসিক শেষ হবে পুরোপুরি ভালো হয়ে যাবে তারপরের দিন থেকেই আপনি সহবাস করতে পারবেন সেক্ষেত্রে কোন সমস্যা হবে না কিন্তু আপনি সে ক্ষেত্রে পরের দিন থেকে করলেই যে আপনার সন্তান হবে এমন কোন কথা নাই তবে সন্তান হচ্ছে আল্লাহ প্রদত্ত আল্লাহতালা যখন চাইবেন আপনাকে সন্তান দান করবেন তখন চাইবেন না আপনাকে সন্তান দান করবেন না সে ক্ষেত্রে এ বিষয় নিয়ে আপনার মাথাব্যথা সেরকম কিছু নেই।

তবে ইসলামিক নিয়ম অনুযায়ী আল্লাহ বলেছে আপনি চেষ্টা করতে থাকুন আপনাকে আল্লাহ পাক একটি সময় তা সফলতা দিবে তাই আপনি সঠিক নিয়ম অনুসারে চেষ্টা করতে থাকুন সফলতা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন।

পূর্ণাঙ্গ ডিম্বাণু জরায়ুতে ১২ থেকে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত কার্যকর থাকে। তাই সেই সময়টা গর্ভধারণের জন্য সবচেয়ে উর্বর। সাধারণভাবে ধরা হয়, পিরিয়ডের শুরুর দিন থেকে ধরলে ৯ থেকে ১৯তম দিনের মাঝে, অর্থাৎ এই ১০ দিনের যেকোনো দিন জরায়ুতে শুক্রাণু থাকলে নিষিক্ত হতে পারে।

কেন মাসের একটা সময় সন্তান ধারণের সম্ভাবনা এতো বেড়ে যায়। একজন নারীর শরীরে দুইটা ওভেরি বা ডিম্বাশয় থাকে। প্রতি মাসে এখানে একটা করে ডিম্বাণু পরিপক্ক হয়। যখন ডিম্বাণু পরিপক্ক হয়ে যায় তখন সেটা খোলস ভেঙ্গে উপরের দিকে বের হয়ে ঢুকে ফ্যালোপিয়ান টিউব (Fallopian Tube) বা ডিম্বনালীতে। এই ঘটনাকেই আমরা ডিম ফুটে বেরিয়ে আসা বলি। যে ডিম্বাণুটা বের হয়ে আসলো এটা এখন সন্তান ধারণে সক্ষম। ফ্যালোপিয়ান টিউব বা ডিম্বনালীতে পুরুষের শুক্রাণু আগে থেকেই এসে বসে থাকে তাহলে সেটা ডিম্বাণুর সাথে মিলিত হয়। আর ডিম্বাণু শুক্রাণুর মিল হলেই কেবল তা গর্ভধারণে সক্ষম। যদি শুক্রাণু মিলিত না হয় তবে ডিম্বাণু একাএকা এসে জরায়ুতে এসে পৌছায়। তাহলে কয়েকদিন পরেই জরায়ু তার গায়ের মোটা প্রলেপ ঝেড়ে ফেলে সেখান থেকে রক্ত ক্ষরণ হয়।

এই ঘটনাকেই আমরা বাইরে থেকে মাসে মাসে মাসিক বা ঋতু স্রাব হিসাবে দেখে থাকি। এই সাধারণভাবে ঘটে। এর বাইরেও কিছু ব্যাপার আছে। তবে এখনকার আলোচনার জন্য সেটা বুঝার প্রয়োজন নেই। এখন খেয়াল করেন নারীর দেহে পুরুষের শুক্রাণু সাধারণত তিন দিন বাঁচে। কিছু ক্ষেত্রে সাত দিন পর্যন্ত বাঁচতে পারে। কিন্তু একটা পরিপক্ব ডিম্বাণু থাকে সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টা। তার মানে ডিম্বাণু খুব অল্প সময়ের জন্য থাকে। তাই ডিম্বাণু যে কয়েক ঘণ্টা আছে এই সময়টা আমাদেরকে ব্যবহার করতে হবে। না হলে গর্ভধারণ হবে না। যেহেতু পুরুষের শুক্রাণু নারী দেহে কয়েকদিন বেঁচে থাকতে পারে তাই শুক্রাণুকে আগে আগে গিয়ে বসে থাকতে হবে ডিম্বাণুর জন্য। যাতে ডিম্বাণু বের হলেই শুক্রাণু গিয়ে তার সাথে মিলিত হতে পারে। অর্থাৎ ডিম্বাণু বের হওয়ার আগের কয়েকদিন যদি সহবাস করা হয় তাহলে শুক্রাণুর ঠিক সময় ঠিক জায়গায় থাকার সম্ভাবনা বাড়ে। পুরুষের মেয়েদের সেক্স বৃদ্ধি করার হোমিও ঔষধ কিনতে ক্লিক করুনএখনি কিনুন 

কত দিন মাসিক না হলে গর্ভবতী হয়

সাধারণত আপনি তখনই বুঝতে পারবেন যখন আপনি গর্ভবতী হয়েছেন যখন আপনি দেখবেন যে আপনার এক থেকে দেড় মাস হয়ে গেছে অথবা দুই মাস দুইটা ডেট পার হয়ে গেছে আপনি কখনো আপনার কোনোক্রমেই আপনার মাসিক হচ্ছে না সে ক্ষেত্রে আপনি তখন বুঝতে পারবেন যে আপনার হয়তো বা কোন কারনে গর্ভবতী হতে চাচ্ছেন এবং সে যদি আপনি পরীক্ষা করার জন্য বাজার থেকে উন্নত মানের সেগুলোর মাধ্যমে আপনি পরীক্ষা করতে পারবেন অথবা আপনি কোন আশেপাশে নিয়ারেস্ট কোন ক্লিনিকে গিয়েও আপনি পরীক্ষাটি করে সিওর হতে পারবেন।

কত বার সহবাস করলে বাচ্চা হবে

সাধারণত বাচ্চা বলা হয়ে থাকে একজন মানুষকে ছোট অবস্থায় যখন সে বাচ্চা থাকে তখন তাকে বাচ্চা বলা হয়ে থাকে এবং বাচ্চা হচ্ছে আল্লাহর প্রদত্ত একটি জিনিস সন্তান বা মানুষ আল্লাহ পাক একজন মানুষকে সৃষ্টি করে থাকেন এবং তিনি সৃষ্টির মাধ্যমে পৃথিবীতে তার কারো না কারো মাধ্যমে পৃথিবীতে তার আগমন ঘটে এবং সে তার নিজের অস্তিত্ব খুঁজে পায় সে ক্ষেত্রে সে ক্ষেত্রে কতবার পড়লে বাচ্চা হবে এ ধরনের কোনো বাধ্যবাধকতা নেই তবে আপনাকে বাঁচানোর জন্য তেমন কোন কষ্ট করতে হবে না তবে আপনি নিয়মিত রেগুলার সহবাস করতে থাকলে আপনার কোন ধরনের সমস্যা না থাকলে সে ক্ষেত্রে এমনিতেই আল্লাহপাক এই বাচ্চা হতে সাহায্য করবে।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “মাসিকের কতদিন পর সহবাস করলে সন্তান হয়”

Your email address will not be published. Required fields are marked *