মাসিক হওয়ার কতদিন পর সহবাস করলে ছেলে সন্তান হয়

2,250.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

404 in stock

Description

মাসিক হওয়ার কতদিন পর সহবাস করলে ছেলে সন্তান হয় সম্পর্কে অনেকেই আমাদের কাছে বিস্তারিত জানার আগ্রহ প্রকাশ করে থাকেন তাই আজকের আর্টিকেলটি সাজিয়েছে এমনভাবে যে আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন মাসিক হওয়ার কতদিন পর সহবাস করলে ছেলে সন্তান হয় এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব এছাড়া মাসিক হওয়ার পর কতদিন পর সহবাস করতে হয় এ সম্পর্কে আমরা আজকের আর্টিকেলটি নিয়ে ফুল আলোচনা করব তাই আজকের আর্টিকেলটি আপনি কোন প্রশ্ন থাকে সে ক্ষেত্রে আমাদেরকে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আমাদের সঠিক উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবে।সিজারের পর সহবাসের নিয়ম

মাসিক হওয়ার কতদিন পর সহবাস করলে ছেলে সন্তান হয়

আমরা যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি এই আলোচনাগুলো মূলত এ সম্পর্কিত তথ্যগুলো আজকের আর্টিকেলটিতে আমরা তুলে ধরেছি তাই উপরে তো তথ্যগুলো যদি আপনি মনোযোগ সহকারে আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়েন সে ক্ষেত্রে জানতে পারবেন আসলে মাসিক হওয়ার পরে কতদিন পর সহবাসের ক্ষেত্রে সে ক্ষেত্রে অথবা মাসিকের সাথে ছেলে সন্তান হওয়ার কোন সম্পর্ক নেই।

এছাড়া এক্ষেত্রে কোন নিয়মকানুন নেই যে ক্ষেত্রে যে নিয়ম কারণ মেনে হাউজ করলে ছেলে সন্তান হবে এটি হচ্ছে একটি মানুষের ভাগ্য আল্লাহ পাক তার ভাগ্যে নির্ধারিত করে রাখে যে কখন কাকে ছেলে সন্তান পুত্র সন্তান দান করবেন এখনো এবং কখন কাকে কন্যা সন্তান দান করবেন এটি হচ্ছে একমাত্র মহান আল্লাহ পাক আল্লাহতালা তার ভাগ্যে লিখে রেখেছেন আল্লাহ।

যৌনমিলনের হার পুরুষ ও নারীর বয়সের উপর নির্ভর করে। বয়সের সঙ্গে নারী ও পুরুষের যৌনজীবনের সরাসরি সম্পর্ক আছে। বয়স যত বাড়ে যৌনমিলনের হার তত কমে। সদ‍্যবিবাহিত দম্পতিরা প্রথমদিকে দিনে ২ থেকে ৩ বার সহবাস(Intercourse) করলেও, কয়েক মাসের মধ্যে যৌনমিলনের হার দিনে এক বার অথবা দু’দিনে এক বারে থিতু হয়।

একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ ও একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারী যখন শারীরিক ও মানসিক দিক থেকে ফুরফুরে অবস্থায় থাকেন তখনই তাঁদের মধ্যে শারীরিক মিলন(Physical intercourse) হতে পারে। দু’জনের মধ্যে একজন যদি শারীরিক ও মানসিক দিক থেকে মিলনে আগ্রহী না হন, তবে সহবা’স না করাই শ্রেয়। সেক্ষেত্রে অনাগ্রহী পার্টনারের শারীরিক ও মানসিক(Mental) ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

তাই এই মাসিকের সাথে আসলে সহবাসের এবং ছেলে সন্তানের কোন সম্পর্ক নেই এটি হচ্ছে মহান আল্লাহ প্রদত্ত একটি নোটিশ যে নোটিশ এর মাধ্যমে আল্লাহ পাক ঠিক করে রাখে যে কখন কাকে সন্তান দান করবেন ও কখন কাকে মেয়ে সন্তান দান করবেন। পুরুষের মেয়েদের সেক্স বৃদ্ধি করার ভেষজ  ঔষধ কিনতে ক্লিক করুনএখনি কিনুন 

মাসিকের সময় সহবাস করা যায় কি না

ইসলামিক পদ্ধতি অথবা ইসলামের নিয়ম কারণ অনুযায়ী আপনি যখন মাসিকের সময় অথবা হায়েসের সময় সহবাস করা একেবারেই নিষিদ্ধ কারণে এ সময় তাদের নিষিদ্ধ অথবা মেয়েদের শরীর থেকে যেটা বের হয় আল্লাহ এই সময় আসলে আপনাকে সহবাস করার জন্য একদম নিষিদ্ধ করা হয়ে থাকে এবং আপনি সময় গুলো সহবাস করবেন না।

এ সময় সাধারণত মেয়েদের আগের চেয়ে অনেক পাতলা থাকে এবং যেকোন সমাজে কোন সমস্যা সম্মুখীন হতে পারেন এবং এ থেকে আপনি বড় বড় দুর্ঘটনা দুর্ঘটনাও করতে পারে তাই অবশ্যই আপনি এই নিয়মটা মেনে চলতে হবে এজন্য না চললে অবশ্যই আপনাকে যেকোনো বড় একটি বিপদে পড়তে হতে পারে তাই অবশ্যই আপনি মাসিকের সময় কখনই সহবাস করার চেষ্টা করবেন না।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “মাসিক হওয়ার কতদিন পর সহবাস করলে ছেলে সন্তান হয়”

Your email address will not be published. Required fields are marked *