কিস্তি আদায়ের কৌশল

850.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

1005 in stock

Description

 

কিস্তি আদায়ের কৌশল সম্পর্কে অনেকেই আমাদের কাছে বিস্তারিত জানার আগ্রহ প্রকাশ করে থাকে তাই আজকের আর্টিকেলটি সাজিয়েছি এমনভাবে যেখানে আপনি জানতে পারবেন সহজেই কিস্তি আদার কৌশল গুলো এবং আপনি যে কিস্তির টাকা গুলো গ্রামে অথবা আশেপাশে যেখানে দিয়েছেন সেটি কিভাবে আদায় করবেন এবং সেটি আদায় করার কৌশল গুলো ।

কিস্তি আদায়ের কৌশল
এছাড়াও আর্টিকেলটিতে আমরা কিছু বিজ্ঞাপন পিকচার তুলে ধরেছি আপনারা চাইলে সেই পিকচার গুলোর প্রডাক্ট গুলো পছন্দ হয়ে থাকলে অর্ডার করে দিতে পারেন আমাদের প্রতিনিধি খুবই দ্রুত যোগাযোগ করবে এবং পৌঁছে দিবে আপনার পছন্দের প্রোডাক্টটি ।  দীর্ঘ সময় সহবাস করার প্রাকৃতিক খাবার ( দীর্ঘ সময় সহবাস করার ভেষজ ঔষধ )

কিস্তি আদায়ের কৌশল

কিস্তি হচ্ছে আপনি যখন কোন সমিতি অথবা কোন সঞ্চয়পত্র পরিচালনা করবেন এখন কোন এছাড়াও আপনি যখন কোন এনজিও পরিচালনা করবেন সে ক্ষেত্রে আপনার কাছ থেকে কোন গ্রাহক কিস্তি নিতে আসবে একসাথে আপনার কাছ থেকে ২০ থেকে ৫০ হাজার অথবা 1 লাখ 2 লাখ টাকা নিতে আসবে সেখানে আপনি তার কাছ থেকে কিছু টাকা সুদ হিসেবে ৫% সুদ হিসেবে সুদ নিবেন এবং পুরো টাকাটা এই নিবেন সেটা হচ্ছে কিস্তির মাধ্যমে এমন কিস্তি হবে সপ্তাহে 5000 এবং কি ২০০০ টাকা হতে পারে এবং ১ হাজার টাকা হতে পারে এভাবে আপনি টাকা পুরো টাকা শোধ না হওয়া পর্যন্ত আপনি পিসি নিতে থাকবেন এটাকে বলা হয় কিস্তি ।

অবশ্য দেখা যায় এসব কিস্তি নিয়ে অনেকেই টাকা পয়সা ঠিকমতো দেয় না অথবা লেনদেন করে না এজন্য সেই কিস্তিগুলো আদায় করার কিছু কৌশল আপনার জানা থাকতে হবে নয়তোবা আপনি অনেক ঝামেলায় পড়তে পারেন ।

আমরা কিছু কিস্তি আদায় করার কৌশল সম্পর্কে বিস্তারিত অরণ্য আলোচনা করেছি আপনারা চাইলে সেগুলো দেখতে পারেন ।

১) উভয় পক্ষের মধ্যে আপোষ মিমাংসার মাধ্যমে; ২) ফৌজদারী আদালতে গচ্ছিত চেকের বিরুদ্ধে মামলা করে; ৩) দেওয়ানী আদালতে মানি স্যুট এর মাধ্যমে; ৪) অর্থ ঋণ আদালতে ঋণ গ্রহীতার বিরুদ্ধে মামলা করে; ৫)ঋন পরিশোধের জন্য সময় প্রদান করে । আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কনডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পুশি  কিনতে এখনই কিনুন

উপরে আমরা কিস্তি আদায়ের কৌশল সম্পর্কে যে বিস্তারিত আলোচনা গুলো করেছি আপনারা চাইলে আরো খিস্তি আদায়ের সম্পর্কে জানতে পারেন সে ক্ষেত্রে কিস্তি আদায় করার কৌশল সম্পর্কে কিছু বই রয়েছে অথবা এ সম্পর্কে যে নিয়ম কানুন রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে আপনি বইয়ের বই আকারে পেয়ে যাবেন বাজারে সেগুলো কিনে আপনি এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করতে পারবেন জানতে পারবেন ।

খেলাপি ঋণ আদায়ের কৌশল

এখন খেলাপি ঋণ আদায়ে কিছু বিষয় সুবিবেচনায় আনা প্রয়োজন। প্রথমত, ঋণ বিতরণ ও আদায়ে সমতা বিধান করা। ঋণ বিতরণ যদি স্বচ্ছতার সঙ্গে উৎপাদনশীল খাতে হয় তাহলে আদায়ের অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। এ ব্যাপারে ব্যাংকার গ্রাহকের নৈতিকতার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ, যারা অসাধুতাকে অংশীদারত্বের ভিত্তিতে পরিচালিত করে তারা উভয়ই সমান দায়ী। এ ব্যাপারে প্রথমে ব্যাংকারদের সতর্ক হতে হবে এবং পরে গ্রাহককেও এ পথ অনুসরণ করতে হবে; দ্বিতীয়ত, দেশের ৩৯টি বেসরকারি ও চারটি সরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক সাধারণত আর্থিক বাজারের অংশ হিসেবে স্বল্পমেয়াদে গ্রহীতাদের ঋণের চাহিদা পূরণ করার কথা। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, এ ব্যাংকগুলো দীর্ঘমেয়াদে ৪-৫ হাজার কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ দিয়েছে, যার বেশির ভাগ খেলাপি ঋণে পরিণত হয়েছে।

এখন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো নিয়মনীতি ভঙ্গ করে ঋণ দেয়া এবং ঋণখেলাপি হওয়ার মতো একটি যাতনা বয়ে বেড়াচ্ছে। ফলে তারল্য সংকট, মুনাফার ঘাটতি ও ইমেজ সংকট তৈরি হচ্ছে। অথচ দীর্ঘমেয়াদে বড় কোনো ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে বিশেষায়িত ব্যাংক যেমন বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (বিডিবিএল), বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (বিকেবি), বেসিক ব্যাংক, রাকাব ইত্যাদি রয়েছে, যারা সরকারি ব্যাংক হিসেবে সরকারের সাহায্যপুষ্ট হয়ে বেশি সময়ের অর্থায়নে অংশ নিতে পারে। এ অসংগতিগুলো দূূর করা প্রয়োজন।

বকেয়া আদায়ের নোটিশ

উপরে আমরা বকেয়া আদায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি এছাড়াও অনেকগুলো কথা বলেছি আপনারা চাইলে বকে আদায়ের নোটিশ সম্পর্কে ইন্টারনেটে পেয়ে যাবেন এছাড়া আপনি আইন বিষয়ে কথাবার্তা বলে সেখানে আইন বিচারকের কাছে পেয়ে যাবেন এবং কিভাবে সে সম্পর্কে জানতে পারবেন ।

বকেয়া প্রতিরোধের উপায়

বকেয়া কমানোর মূল চাবিকাঠি হল দেরী ঋণ দ্রুত অনুসরণ করা, শক্তিশালী সংহতি গোষ্ঠী গঠন করা, ক্রেডিট নীতিগুলি আপডেট করা এবং প্রয়োগ করা, একটি নির্দিষ্ট ভৌগলিক সুযোগে ক্রেডিট অফিসারদের পরিষেবাগুলিতে ফোকাস করা, ব্যবসা শুরু করাকে ধার না দেওয়া এবং ক্রেডিট অফিসারদের জন্য আর্থিক প্রণোদনা প্রদান করা।

উপরের তথ্য অনুযায়ী যদি আপনি চলাফেরা করতে পারেন অথবা নিয়ম গুলো মানতে পারেন তবে অবশ্যই আপনি বকেয়া প্রতিরোধ করতে পারবেন এবং এছাড়াও বিস্তারিত আলোচনাগুলো করেছি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তা অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাবেন আমরা আশা করি যথাযথ উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ধন্যবাদ।

এছাড়াও আমরা কিছু বিজ্ঞাপন পিকচারের তুলে ধরেছি আপনি চাইলে সেগুলো অর্ডার করে দিতে পারেন আমাদের প্রতিনিধি খুবই দ্রুত আপনাদেরকে যোগাযোগ করবে আপনার সাথে পৌঁছে দিবে আপনার পছন্দের পণ্যটি।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “কিস্তি আদায়ের কৌশল”

Your email address will not be published. Required fields are marked *