কারক ও বিভক্তি নির্ণয়ের সহজ কৌশল

550.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

900 in stock

Description

কারক ও বিভক্তি নির্ণয়ের সহজ কৌশল সম্পর্কে অনেকেই আমাদের কাছে বিস্তারিত জানতে চেয়ে থাকেন এবং এছাড়া এছাড়া আমরা আলোচনা করব কারো বিভক্তি কি এবং এগুলো নির্ণয়ের সহজ কৌশল এবং এগুলো কিভাবে নির্ণয় করতে হয় এবং কারো কি কারো কাকে বলা হয় বিভক্তি কাকে বলা হয় ইত্যাদি সম্পর্কে আমরা আলোচনা করব তো আপনারা আমাদের আলোচনা গুলো মনোযোগ সহকারে পড়বেন আশা করি যদি আপনাদের কোন মন্তব্য থাকে তবে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন আমরা যথাযথ উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ।

কারক ও বিভক্তি নির্ণয়ের সহজ কৌশল

এছাড়াও আর্টিকেলটিতে আমরা কিছু বিজ্ঞাপন পিকচার তুলে ধরব যেগুলো আপনি চাইলে সহজেই আমাদের কাছ থেকে কিনতে পারবেন আমাদের কাছ থেকে প্রোডাক্টগুলো সংগ্রহ করতে চাইলে আমাদের স্ক্রিনে দেয়া নাম্বারটিতে কল করে অর্ডার করে দিলে আমাদের প্রতিনিধি খুবই দ্রুত আপনাদের সাথে যোগাযোগ করব ।  স্বপ্নে নিজেকে সহবাস করতে দেখলে কি হয় ( জেনে নিন সকল তথ্য )

কারক ও বিভক্তি নির্ণয়ের সহজ কৌশল

বাক্যের ক্রিয়াপদের সঙ্গে নামপদের সম্পর্ককে কারক বলে। অর্থাৎ, বাক্যের ক্রিয়াপদের সঙ্গে অন্যান্য পদের যে সম্পর্ক, তাকে কারক বলে। বাক্যস্থিত যে বিশেষ্য বা সর্বনাম পদ ক্রিয়া সম্পন্ন করে, তাকে ক্রিয়ার কর্তা বা কর্তৃকারক বলে। ক্রিয়াকে ‘কে/ কারা’ দিয়ে প্রশ্ন করলে যে উত্তর পাওয়া যায়, সেটিই কর্তৃকারক।

বিভক্তি দুই প্রকার।

যথাঃ ১. শব্দ বিভক্তি ২. ধাতু বিভক্তি।
শব্দ বিভক্তিঃ যে বর্ণ বা বর্ণসমষ্টি শব্দের সঙ্গে যুক্ত হয়ে নামপদ গঠন করে, তাদেরকে বলে শব্দ বিভক্তি। যেমনঃ কে, রে, তে, এর ইত্যাদি।
বাক্যে প্রয়োগঃ ভিক্ষুককে ভিক্ষা দাও। বাগানের বেড়া। ঘরেতে ভ্রমর এলো গুনগুনিয়ে।
ধাতু বিভক্তিঃ যে বর্ণ বা বর্ণসমষ্টি ধাতুর সঙ্গে যুক্ত হয়ে কার্যবাচক ক্রিয়াপদের সৃষ্টি করে, তাদেরকে বলা হয় ধাতু বিভক্তি। যেমনঃ এ, অ, ই ইত্যাদি।

তাই আমরা যতটুকু বলব কারক ও বিভক্তি নির্ণয়ের সহজ কৌশল গুলো আপনাকে শিখতে হলে অবশ্যই আপনাকে কারক সম্পর্কে জানতে হবে এবং কারক সম্পর্কে জানার পরে আপনাকে জানতে হবে বিভক্তি নির্ণয়ের সম্পর্কে এই দুটো সম্পর্কে আপনি যখন এই ধারণা পেয়ে যাবেন তখন আপনি এই নির্ণয়ের সহজ কৌশল গুলো আপনি বুঝে যাবেন এছাড়া আপনাকে এগুলো প্রথমে বাংলা ব্যাকরণ গুলো আপনাকে সুন্দর ও সহজভাবে করতে হবে এবং কারক ও বিভক্তির সবগুলো তথ্য দিয়ে থাকবে যে তথ্যগুলো আপনি সুন্দর করে মুখস্ত করলে আপনি এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করতে পারবেন এবং বিস্তারিত জানতে পারবেন ।

ওপরের আর্টিকেলটিতে আমরা সাধারণত কারো কাকে বলে এবং কারো কি এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছে যেগুলো আপনারা মনোযোগ দিয়ে পড়লে এগুলো পাবেন । আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কনডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পুশি  কিনতে এখনই কিনুন

 

কারক নির্ণয়ের সূত্র

বাক্যে ক্রিয়াপদের সঙ্গে কর্তার যে সম্পর্ক, তাকেই বলা হয় কর্তৃ কারক। কর্তৃ কারক চেনার সহজ উপায়ঃ বাক্যের সমাপিকা ক্রিয়াকে ‘কে’ / ‘কারা’ দিয়ে প্রশ্ন করলে যে উত্তরটি পাওয়া যায় সেটিই কর্তৃ কারক।

তো কারো কি নর সূত্রগুলো আপনি বিস্তারিত এগুলোর কাছে পেয়ে যাবেন এবং এখান থেকে জেনে যাবেন এছাড়াও আপনি যদি আরো বেশি জানতে চান তবে অবশ্যই আপনাকে বই পড়তে হবে এবং বেশি বেশি গুরুত্বপূর্ণ

কারক ও বিভক্তি নির্ণয় উদাহরণ

 

বাক্যের একটি শব্দের সঙ্গে আরেকটি শব্দের সম্পর্ক স্থাপনের জন্য শব্দগুলোর সঙ্গে কিছু শব্দাংশ যুক্ত করতে হয়। এই সব শব্দাংশ গুলোকে বলা হয় বিভক্তি। যেমন- বাবা ছেলে স্কুল নিয়ে যাচ্ছ ।
উপরের বাক্যটিতে কোন শব্দের সঙ্গে বিভক্তি যুক্ত হয় নি। শব্দগুলোর মধ্যে কোনো সম্পর্কও সৃষ্টি হয়নি এবং এগুলো কোন অর্থবহ বাক্য হয়ে উঠতে পারেনি। এখন ছেলের সঙ্গে কে বিভক্তি, স্কুল এর সঙ্গে এ বিভক্তি আর যাচ্ছ এর সঙ্গে এন বিভক্তি যোগ করলে বাক্যটি হবে বাবা ছেলেকে স্কুলে নিয়ে যাচ্ছেন। অর্থাৎ, শব্দগুলোর মধ্যে পারস্পারিক সম্পর্ক সৃষ্টির মাধ্যমে একটি বাক্য সম্পন্ন হলো এবং এখন আর এগুলো শব্দ নয় এগুলো প্রত্যেকটি একটি পথ পদ।
শব্দের সঙ্গে বিভক্তিযুক্ত হলে তখন সে গুলোকে বলা হয় পদ। ব্যাকরণের দৃষ্টিকোণ থেকে বাক্যে বিভক্তি ছাড়া কোনো পদ থাকে না বলে ধরা হয়। তাই কোন শব্দে কোন বিভক্তি যোগ করা প্রয়োজন না হলেও ধরে নেওয়া হয় তার সঙ্গে একটি বিভক্তি যুক্ত হয়েছে এবং এই বিভক্তিটিকে বলা হয় শূন্য বিভক্তি। উপরের বাক্যটিতে বাবা ও ছেলে শব্দের সঙ্গে কোন বিভক্তি যোগ করার প্রয়োজন হয়নি। তাই ধরে নিতে হবে এই শব্দ দুটির সঙ্গে শূন্য বিভক্তি যোগ হয়ে এগুলো বাক্যে ব্যবহৃত হয়েছে এবং এই শব্দ দুটিও কোন পদ।

 

কারক নির্ণয় করার সহজ উপায় কী

উল্লিখিত উপরের প্রশ্নগুলো পড়লে আপনি এছাড়া উপরে উত্তরগুলো পড়লে আপনি জানতে পারবেন কারো কি উন্নয়নের সহজ উপায় গুলো কি কি এবং কারো কিভাবে নির্ণয় করতে হয় এবং কারক নির্ণয় করতে কি কি লাগে এবং কারক নির্ণয় কিভাবে করবেন এ বিষয়ে আপনি বিস্তারিত জানতে পারবেন এছাড়াও বিস্তারিত আমাদের কাছে আপনি জানতে আমাদের কি কমেন্ট করে আপনি জানাতে পারেন এবং আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “কারক ও বিভক্তি নির্ণয়ের সহজ কৌশল”

Your email address will not be published. Required fields are marked *