শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল

550.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

1009 in stock

Description

শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল সম্পর্কে অনেকেই আমাদের কাছে বিস্তারিত জানার আগ্রহ প্রকাশ করে থাকেন তাই আজকের আর্টিকেলটি সাজিয়ে সে এমন ভাবে যে আর্টিকেলটিতে আপনারা জানতে পারবেন পদ্ধতি সঠিক পদ্ধতি ও কৌশল এছাড়াও আপনি কি পদ্ধতিতে সঠিকভাবে শিক্ষাদান করতে পারবেন এবং কোন কৌশল অবলম্বন করে শিক্ষার্থীদেরকে আপনি সঠিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে পারবেন । রোমান্টিক কথা বলার কৌশল

শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল

বিভিন্ন ধরণের শিক্ষণ পদ্ধতি রয়েছে যা তিনটি বিস্তৃত প্রকারে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে। এগুলি হল শিক্ষক-কেন্দ্রিক পদ্ধতি, শিক্ষার্থী-কেন্দ্রিক পদ্ধতি, বিষয়বস্তু-কেন্দ্রিক পদ্ধতি এবং ইন্টারেক্টিভ/অংশগ্রহণমূলক পদ্ধতি।

শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল

শেখার জন্য শিক্ষক-কেন্দ্রিক পদ্ধতি: শিক্ষকরা হলেন প্রধান কর্তৃপক্ষ এবং শিক্ষার্থীদের “এম্পটি ভেসেলস” হিসাবে দেখা হয় যার প্রাথমিক ভূমিকা হল পরীক্ষা এবং মূল্যায়নের শেষ লক্ষ্যের সাথে নিষ্ক্রিয়ভাবে তথ্য (বক্তৃতা এবং সরাসরি নির্দেশের মাধ্যমে) গ্রহণ করা। তাদের শিক্ষার্থীদের কাছে জ্ঞান ও তথ্য পৌঁছে দেওয়া শিক্ষকদের প্রাথমিক ভূমিকা। শিক্ষক-কেন্দ্রিক পদ্ধতির কিছু উদাহরণের মধ্যে রয়েছে: বক্তৃতা পদ্ধতি এবং পুরো দল আলোচনা ।

শেখার জন্য ছাত্র-কেন্দ্রিক পদ্ধতি:শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা শেখার প্রক্রিয়ায় সমানভাবে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে। শিক্ষকের প্রাথমিক ভূমিকা হল শিক্ষার্থীদের শেখার এবং সামগ্রিক বিষয়বস্তু বোঝার প্রশিক্ষন এবং সুবিধা প্রদান করা। গোষ্ঠী প্রকল্প, ছাত্র পোর্টফোলিও এবং ক্লাসে অংশগ্রহণ সহ আনুষ্ঠানিক এবং অনানুষ্ঠানিক উভয় ধরনের মূল্যায়নের মাধ্যমে ছাত্রশিক্ষা পরিমাপ করা হয়। শিশু-কেন্দ্রিক পদ্ধতির কিছু উদাহরণের মধ্যে রয়েছে: ছোট দল আলোচনা, সিমুলেশন, প্রকল্প ইত্যাদি।
এছাড়াও বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের শিক্ষাদান পদ্ধতি আমাদের দেশে সংযুক্ত অথবা চালু রয়েছে আপনি চাইলে সেই শিক্ষাদান পদ্ধতি গুলো ব্যবহার করে আপনার সন্তানকে শিক্ষা দান করতে পারেন ।

আধুনিক শিক্ষাদান পদ্ধতি

শিক্ষাদান পদ্ধতি হাতে-কলমে উপকরণ ব্যবহারের মাধ্যমে করতে হয়। বিষয়বস্তুর সাথে মিল রেখে শিক্ষক নিজেই উপকরণ তৈরি করে শিক্ষাদান কার্য পরিচালনা করবেন। শিক্ষকতা হলো এক ধরনের সৃষ্টিধর্মী প্রক্রিয়া, শিক্ষকতা কোন যান্ত্রিক প্রক্রিয়া নয়। পুরুষের মেয়েদের সেক্স বৃদ্ধি করার হোমিও ঔষধ কিনতে ক্লিক করুনএখনি কিনুন 

শ্রেণিকক্ষে পাঠদান পদ্ধতি

পদ্ধতি এককভাবে ব্যবহৃত না হয়ে কখনো কখনো কৌশল আবার কখনো কখনো কৌশল, পদ্ধতিতে রুপ নেয়। শিক্ষকের বিভিন্ন পদ্ধতি ও কৌশলের উপর দক্ষতা এবং শ্রেণি ও পাঠ উপযোগী পদ্ধতি ও কৌশলের যথাযথ প্রয়োগের উপর নির্ভর করে শিক্ষার্থীর শিখন সাফল্য।
এছাড়া বর্তমান শিক্ষাদান পদ্ধতিতে যখন শিক্ষক ক্লাসে পড়াবেন এবং তাদেরকে ক্লাসেই সেই পড়াগুলো মুখস্ত করে আবার ক্লাসেই পড়াগুলো ফেরত জমা নেন একেই বলা হয় শ্রেণিকক্ষে পাঠদান পদ্ধতি ।

আদর্শ পাঠদান পদ্ধতি

আদর্শ পর্দার পদ্ধতি বলতে বোঝায় যে আপনি যখন পাঠদান করবেন অথবা পাঠদান জন্য শিক্ষার্থীদের মনোযোগের জন্য উদ্বিপ্ত হতে চেষ্টা করবেন এবং আপনি যখন পারবেন শুরু করবেন যাতে আপনার পাঠানের শিক্ষার্থীরা মনোযোগ সহকারে শুনে এবং বুঝে পাঠদান গুলো করে এবং আপনি পারবেন যেটা করবেন সেটি সাধারণত ছড়া কবিতা তার মাধ্যমে আপনি এই পারবেন কি করাবেন এবং আপনি যখন বড় দেখে পারবেন ।

অবশ্যই আদর্শ পাঠ দান করতে হলে আপনাকে যা করতে হবে আপনি যে বিষয়টি অথবা যে বিষয়টি পাঠদান করাবেন সেটি আপনাকে তাদেরকে একদম সুন্দরভাবে বুঝিয়ে সুন্দরভাবে সেটা ওখানেও পুঙ্খানুরূপে বুঝিয়ে বলে তারপরে তাদেরকে শিক্ষা দিতে হবে এবং দরকার হয় কোন কিছুর তুলনা করে আপনি সেটি বুঝিয়ে দিতে পারবেন ।

এছাড়া বইয়ের ভাষা যদি সেই তুই বুঝতে না চায় তবে অবশ্যই আপনি যেকোনো গল্পের ভাষায় এটি তাকে বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করবেন এবং এটাই হবে আদর্শ পাঠ দান পদ্ধতি

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “শিক্ষাদান পদ্ধতি ও কৌশল”

Your email address will not be published. Required fields are marked *