গ্যাস্ট্রিক বুকে ব্যাথা দূর করার উপায়

64.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913640

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

999 in stock

SKU: (30) গ্যাস্ট্রিক এর ঔষধ (esonix 20 capsule) ৮ পিস Categories: , Tag:

Description

গ্যাস্ট্রিক বুকে ব্যাথা দূর করার উপায় গ্যাসের কারণে বুকে ব্যথা, প্রায়ই বলা হয় বুকে অস্বস্তি গ্যাসের কারণে, একটি সাধারণ এবং সাধারণত সৌম্য অবস্থা। এটি ঘটে যখন অত্যধিক গ্যাস পরিপাকতন্ত্রে জমা হয়, যার ফলে বুকের এলাকায় চাপ এবং অস্বস্তি হয়। আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কন -ডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পু -শি  কিনতে এখনই কিনুন

গ্যাস্ট্রিক বুকে ব্যাথা দূর করার উপায়

খাওয়াদাওয়ার অনিয়ম কিংবা অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার কারণে অনেকেই গ্যাষ্ট্রিকের সমস্যায় ভোগেন। এটি একটি পরিচিত সমস্যা। ভাজাপোড়া কিংবা তেল-মসলাযুক্ত খাবার খেলেও কারও কারও গ্যাষ্ট্রিকের সমস্যা মারাত্মক আকার ধারন করে। অনেকেই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা শুরু হলে ওষুধ খেয়ে নেন। তবে ঘরোয়া পাঁচটি উপায়েও এই সমস্যা দূর করা যায়। যেমন-

১. বুক জ্বালাপোড়া এবং অ্যাসিডিটি থেকে তাৎক্ষণিকভাবে মুক্তি পেতে সহায্য করে গুড়। বুক জ্বালাপোড়া করলে সঙ্গে সঙ্গে এক টুকরা গুড় মুখে দিন। চিবিয়ে না খেয়ে ধীরে ধীরে চুষতে থাকুন যতক্ষন না এটা গলে যায়। এতে গ্যাষ্ট্রিকের ব্যথা কমে যাবে। তবে ডায়াবেটিস রোগীদের এ পদ্ধতি গ্রহণ না করাই ভালো।

২. যাদের নিয়মিত গ্যাষ্ট্রিকের সমস্যা হয় প্রতিবার খাওয়ার আধ ঘণ্টা আগে ওষুধের মতো করে আদার টুকরা চিবিয়ে খান। এতে গ্যাষ্ট্রিকে সমস্যা অনেকটা কমে যাবে।

৩. প্রাচীনকাল থেকেই পুদিনা পাতার রস ব্যবহার করা হয় গ্যাষ্ট্রিকের জন্য। প্রতিদিন পুদিনা পাতার রস বা পাতা চিবিয়ে খেলে অ্যাসিডিটি ও গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি পাবেন।

৪.গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা শুরু হলে দু’টি লবঙ্গ মুখে নিয়ে চিবোতে থাকুন। চুষে রসটা খেয়ে ফেলুন। দেখবেন কিছুক্ষণের মধ্যেই অ্যাসিডিটির সমস্যা কমে গেছে।

৫. খাওয়ার পর প্রতিদিন টকদই খাওয়ার অভ্যাস করুন। এতে খাবার যেমন হজম হবে, তেমনি অ্যাসিডিটির সমস্যাও কমে যাবে।

গ্যাস্ট্রিক বুকে ব্যাথা দূর করার উপায় কি

গ্যাস্ট্রিক বা অ্যাসিডিটি হলো পাকস্থলীতে অ্যাসিডের পরিমাণ বেড়ে যাওয়া এবং অবশেষে ক্ষতের সৃষ্টি করা। সাধারণত অতিরিক্ত ঝাল, মসলাযুক্ত খাবার, ভাজাপোড়া জাতীয় খাবারে এটি বেশি হতে পারে। কারণ এসব খাবারকে হজম করতে অতিরিক্ত অ্যাসিডের দরকার হয়; ফলে অনেক হাইড্রোজেন ক্ষরিত হয়ে ক্লোরিনের সঙ্গে মিলে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড তৈরি করে।

অতিরিক্ত অ্যাসিড থেকে পেটে গ্যাস্ট্রিকের ব্যথাও হয়। এ ছাড়া পেট ফোলাভাব বা ফাঁপা ও হজমজনিত সমস্যাও হয়ে থাকে।

কিছু খাবার রযেছে, যা গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। আসুন জেনে নিই এমন কিছু খাবার সম্পর্কে-

১. গ্যাস্ট্রিকের ব্যথায় খেতে পারেন ভেষজ চা। বিভিন্ন ঔষধি গুণ সম্পন্ন গাছ পাতা দিয়ে তৈরি এই চা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও প্রদাহরোধী উপাদান সমৃদ্ধ। ভেষজ চা হজমে সাহায্য করে ও গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা কমায়। ভেষজ উপাদানের মধ্য আদা, পুদিনা, ক্যামোমাইল ও লেবু।

২. পেট ফোলাভাব, গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা, পেট ফাঁপা ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় লবঙ্গ খেতে পারেন। লবঙ্গ চিবিয়ে বা খাবারের পর এলাচের সঙ্গে লবঙ্গের গুঁড়া মিশিয়ে এক কাপ চা পানে অ্যাসিডিটি কমায় ও অতিরিক্ত গ্যাস দূর করে।

৩. আপেল সিডার ভিনেগার অন্ত্রে অ্যাসিডিক মাইক্রোন পরিবেশ তৈরি করে এবং হজমে সহায়ক। এ ছাড়া এনজাইমকেও সক্রিয় করে। এ ছাড়া ব্যথা কমায় ও গ্যাস্ট্রিকের নানান সমস্যা যেমন- পেটব্যথা ও পেট ফোলাভাব কমায়।

৪. দই উপকারী ব্যাক্টেরিয়ার ভালো উৎস এবং এটা হজমে সাহায্য করে। পানির সঙ্গে দই মিশিয়ে পানীয় তৈরি করতে পারেন। এতে ভাজা জিরা ও বিট লবণ মিশিয়ে স্বাদ বাড়াতে পারেন। চাইলে এত আপেলও যোগ করে নিতে পারেন।

৫. উচ্চ আঁশ সমৃদ্ধ খাবার যেমন- বাদাম, বীজ, সবজি, বেরি ও সবুজ শাক সবজি হজম ক্রিয়া উন্নত করে ও গ্যাসট্রিকের ব্যথা কমাতে সহায়তা করে।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “গ্যাস্ট্রিক বুকে ব্যাথা দূর করার উপায়”

Your email address will not be published. Required fields are marked *