কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত

500.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

305 in stock

Description

কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত, প্রিয় পাঠক আজকের  আর্টিকেলটিতে আমরা আলোচনা করব কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত নিয়ে তাই আমাদের আর্টিকেলটি পড়ে আপনি জানতে পারবেন কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তাহলে চলুন দেরি না করে এখনি জেনে নেয়া যাক ।

আর্টিকেলটিতে আমরা কিছু  প্রডাক্ট তুলে ধরেছি প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন পিকচার তুলে ধরেছে আপনি চাইলে প্রোডাক্টগুলো দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে অর্ডার করে সংগ্রহ করতে পারেন । প্রডাক্ট কেনার জন্য সরাসরি ফোন নম্বরে যোগাযোগ করুন অথবা অডার অপশনে অর্ডার করুন ।

কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত

আমাদের পঞ্চইন্দ্রিয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হলো কান। কানের বিভিন্ন সমস্যায় ছোট-বড় অনেকেই ভোগেন। কান দিয়ে পুঁজ/পানি পড়া সাধারণত মধ্যকর্ণের রোগ। প্রচুর পরিমাণে পুঁজ পড়াসহ কান পাকার অন্যান্য লক্ষণ থাকলে রোগীকে মুখে খাওয়ার অ্যান্টিবায়োটিক, কানে অ্যান্টিবায়োটিক ড্রপ, বয়সভেদে নাকের ড্রপ এবং অ্যান্টিহিস্টামিন দিয়ে চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। অবশ্যপালনীয় কিছু নিয়মও মেনে চলতে বলা হয়। যেমন ডুব দিয়ে গোসল না করা, সাঁতার না কাটা।কানের ইনফেকশন হলে প্রথম দিকে যদি চিকিৎসা করানো হয়, তাহলে কান পাকা প্রতিরোধ করা সম্ভব। কিন্তু কানের ভেতর কী হচ্ছে না হচ্ছে সেটা না জেনে যদি কেউ চিকিৎসা করে, তাহলে সেটার ফল ভালো হবে না। তাই এ নিয়ে সচেতন থাকাটা জরুরী।পর্যাপ্ত চিকিৎসা ও নিয়ম মানার পরও যদি দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে কানের পর্দা জোড়া না লাগে, তাহলে একটা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে মাইক্রোসার্জারি করে পর্দা জোড়া লাগিয়ে দেওয়া হয়।

কানে পুঁজ হলে কি করা প্রয়োজন

কান আমাদের শ্রবণ অঙ্গ। এটা আমাদের শরীরে ভারসাম্য রক্ষা করে। কানের তিনটি অংশ : বহিঃকর্ণ, মধ্যকর্ণ ও অন্তঃকর্ণ। কান দিয়ে দীর্ঘমেয়াদি পুঁজ বা পানি পড়াকে আমরা সাধারণত কান পাকা রোগ বলে থাকি। কানের পর্দায় ছিদ্র থাকলে অবশ্যই কান শুকনা রাখতে হবে। কানের ভেতর যেন পানি না যায়। গোসল করার সময় পরিষ্কার তুলা তেলে চুবিয়ে সেই তুলা চিপে আলগা তেল বাইরে ফেলে দেবেন। এরপর সেই তেলে ভেজা তুলা কানে গুঁজে মগ দিয়ে গোসল করতে হবে। গোসলের পর তুলা খুলে নেবেন। অথবা ইয়ার প্লাগ ব্যবহার করতে পারবেন। কোনো অবস্থায় পানিতে সাঁতার কাটা বা ঝরনার পানিতে গোসল করা যাবে না। কানে ইনফেকশন থাকলে কানের চিকিৎসকের কাছে গিয়ে কানটি ঠিকমতো পরিষ্কার করতে হয়। অনেক ক্ষেত্রেই মাইক্রোস্কোপের সাহায্যে এটি করার প্রয়োজন হয়ে পড়ে।

কানে পুঁজ হলে কি করতে হয়

প্রচুর পরিমাণে পুঁজ পড়াসহ কান পাকার অন্যান্য লক্ষণ থাকলে রোগীকে মুখে খাওয়ার অ্যান্টিবায়োটিক, কানে অ্যান্টিবায়োটিক ড্রপ, বয়সভেদে নাকের ড্রপ এবং অ্যান্টিহিস্টামিন দিয়ে চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। অবশ্যপালনীয় কিছু নিয়মও মেনে চলতে বলা হয়। যেমন ডুব দিয়ে গোসল না করা, সাঁতার না কাটা। গোসলের সময় ইয়ার প্লাগ অথবা নারিকেল তেলভেজা তুলা কানে দিয়ে গোসল করা। ঠান্ডা পরিহার করা, ফ্রিজের পানি, আইসক্রিম না খাওয়া। অযথা কান পরিষ্কার না করা। কানের ভেতর মোরগের পাখনা, কচুর ডগা, ম্যাচের কাঠি, কলমের মুখ ইত্যাদি ঢুকিয়ে পরিষ্কার করা সম্পূর্ণ নিষেধ।
আমাদের এই আর্টিকেলটিতে আমরা তুলে ধরেছি কিছু তথ্য যা সংগৃহীত এবং আমাদের নিজস্ব ভাষায় উপস্থাপিত কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত এই আর্টিকেল সম্পর্কে আপনার প্রশ্ন কিংবা জিজ্ঞাসা থাকলে আমাদের আমাদেরকে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করতে পারেন যে আর্টিকেলটি লিখেছি এই আর্টিকেলে কাটা দাগ,পোড়া দাগ ফাটা দাগ দূর করে প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন পিকচার দেয়া রয়েছে আপনি চাইলে প্রোডাক্ট গুলো দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে অর্ডার করতে পারেন ।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “কানে পুঁজ হলে কি করা উচিত”

Your email address will not be published. Required fields are marked *