রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত

500.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

305 in stock

Description

রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত, প্রিয় পাঠক আজকের  আর্টিকেলটিতে আমরা আলোচনা করব রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত নিয়ে তাই আমাদের আর্টিকেলটি পড়ে আপনি জানতে পারবেন রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তাহলে চলুন দেরি না করে এখনি জেনে নেয়া যাক ।

আর্টিকেলটিতে আমরা কিছু  প্রডাক্ট তুলে ধরেছি প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন পিকচার তুলে ধরেছে আপনি চাইলে প্রোডাক্টগুলো দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে অর্ডার করে সংগ্রহ করতে পারেন । প্রডাক্ট কেনার জন্য সরাসরি ফোন নম্বরে যোগাযোগ করুন অথবা অডার অপশনে অর্ডার করুন ।

রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত

প্রায় সব বয়সী মানুষ রক্তস্বল্পতায় ভোগেন। রক্তে লোহিত কণিকা বা হিমোগ্লোবিনের সংখ্যা কমে গেলে রক্তস্বল্পতা দেখা যায়। এ সময় শরীরে রক্ত বৃদ্ধির জন্য প্রচুর পরিমাণে পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে।রক্ত স্বল্পতায় যারা ভুগছেন, তাদের রোজকার খাদ্যতালিকায় আয়রন এবং ভিটামিন বি-12 সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করা আবশ্যক। বেদানা, আমলকি, কমলালেবু, ডুমুর, আপেল, পালং শাক, বিটরুট, টমেটো এবং বাঁধাকপির মতো ফল ও শাকসবজি বেশি করে খান। কলিজায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন ও ভিটামিন বি আছে। রক্তস্বল্পতা রোগের প্রধান কারণ দেহে আয়রনের ঘাটতি।দুধ শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও প্রোটিন যোগাতে সাহায্য করে। দুধে খুব বেশি পরিমাণে আয়রন না থাকলেও এতে প্রায় সব রকমের ভিটামিন আছে। ফলমূলে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে। প্রতিদিন আয়রনযুক্ত ফল যেমন আপেল, টমেটো, বেদানা, কলা, আঙ্গুর, কমলা, গাজর ইত্যাদি খেলে রক্তশূন্যতা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া প্রয়োজন

রক্ত মানবদেহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলোর একটি। রক্ত স্বল্পতার সমস্যায় পুরুষের চেয়ে নারীরা বেশি ভোগেন। শরীরে পর্যাপ্ত রক্তের অভাব হলে হিমোগ্লোবিন স্বল্পতা দেখা দেয়। এর ফলে ক্লান্তি, শারীরিক দুর্বলতা, শ্বাসকষ্টের সমস্যা ইত্যাদি উপসর্গ দেখা যায়।তাই নারীদের উচিত বেশি করে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া। এজন্য প্রতিদিন পাতে রাখতে পারেন মটরশুঁটি, মুসুর ডাল, শাকসবজি, কলা, ব্রকোলিসহ আয়রনসমৃদ্ধ বিভিন্ন খাবার।ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার যেমন কমলালেবু, পেঁপে, ষ্ট্রবেরি, আঙুর ইত্যাদি। ভিটামিন বি কমপ্লেক্সজাতীয় খাবার- কলিজা, সিমের বীজ, বাদাম, কলা।শরীরে হিমোগ্লোবিনের স্তর বাড়াতে আয়রন, ফলিক অ্যাসিড, ফাইবার সমৃদ্ধ বিটের রস খুব উপকারী। আয়রন, ক্যালসিয়াম ও শর্করাসমৃদ্ধ বেদানাও শরীরে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে।

রক্ত কমে গেলে কি খেতে হয়

 রক্ত হলো মানবদেহের জ্বালানি স্বরূপ। মানবদেহে শতকরা ৮ ভাগ রক্ত থাকে। অর্থাৎ গড়ে মানবদেহে ৫-৬ লিটার রক্ত থাকে। রক্ত এক প্রকার কোষবহুল, বহু জৈব ও অজৈব পদার্থের সমন্বয়ে গঠিত। সামান্য লবণাক্ত, আঠালো, ক্ষারধর্মী ও লালবর্ণের ঘন তরল পদার্থ যা হৃৎপিন্ড, ধমনী, শিরা ও কৈশিক জালিকার মধ্য দিয়ে নিয়মিত প্রবাহিত হয়। রক্তে আছে লাল রক্তকণিকা, সাদা রক্তকণিকা, এবং প্লাটিলেট। লাল রক্ত কোষে আছে বিশেষ কিছু আয়রণ কম্পাউন্ড, মেডিকেল টার্মে যাকে বলা হয় হিমোগ্লোবিন।কলিজা, ডিম, দুধ, মাংসের মতো প্রাণিজ খাদ্য থেকে খুব সহজে হিম (হিমোগ্লোবিনের অপ্রোটিন অংশ হিম+গ্লোবিন) তৈরি হয় এবং তা শরীরে খুব দ্রুত শোষণ হয়। উদ্ভিজ্জ উৎস থেকে সেই পরিমাণে হিম তৈরি হতে পারে না বলে প্রাণিজ উৎসকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়।
আমাদের এই আর্টিকেলটিতে আমরা তুলে ধরেছি কিছু তথ্য যা সংগৃহীত এবং আমাদের নিজস্ব ভাষায় উপস্থাপিত রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত এই আর্টিকেল সম্পর্কে আপনার প্রশ্ন কিংবা জিজ্ঞাসা থাকলে আমাদের আমাদেরকে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জিজ্ঞাসা করতে পারেন যে আর্টিকেলটি লিখেছি এই আর্টিকেলে স্থায়ীভাবে মোটা হওয়ার ঔষধ প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন পিকচার দেয়া রয়েছে আপনি চাইলে প্রোডাক্ট গুলো দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে অর্ডার করতে পারেন ।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “রক্ত কমে গেলে কি খাওয়া উচিত”

Your email address will not be published. Required fields are marked *