পেট ব্যথা হলে করণীয়

64.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913640

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন !

999 in stock

SKU: (28) গ্যাস্ট্রিক এর ঔষধ (esonix 20 capsule) ৮ পিস Categories: , Tag:

Description

পেট ব্যথা হলে করণীয় গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথা গ্যাস্ট্রিকের কারণে পিঠে ব্যাথা হতে পারে, তবে এটি অন্যান্য অনেক সমস্যারও লক্ষণ হতে পারে। আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কন -ডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পু -শি  কিনতে এখনই কিনুন

পেট ব্যথা হলে করণীয়

কমবেশি সবারই খুব পরিচিত ও সাধারণ সমস্যা হচ্ছে পেটের ব্যথা। এটি হওয়ার বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে। তবে ভালো খবর এই যে, এসব কারণে বেশিরভাগই গুরুতর না এবং এগুলোর লক্ষণও দ্রুত চলে যায়।

কিন্তু তার পরও পেটে ব্যথা হওয়াটা বিরক্তের বিষয় এবং ছোট হলেও এটি একটি সমস্যা। তাই এটি অবহেলা করা যাবে না। বরং বেছে নিতে হবে সমাধানের উপায়।

এ জন্য আজ জেনে নিন পেটব্যথা কমানোর কিছু প্রাকৃতিক সমাধান –

১. আদা বা আদা চা : প্রচীনকাল থেকেই ব্যথা কমাতে এবং বমি ভাব দূর করতে আদাকে প্রকৃতিক ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এতে অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি ও প্রদাহ বিরোধী গুণ থাকায় এটি ব্যথা কমাতে সহায়তা করে। তাই প্রকৃতিকভাবে পেটের ব্যথা কমাতে আদা কুঁচি করে অথবা চিবিয়ে খেতে পারেন।

২. কলা ও আপেল : কলা ও আপেলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। আর এ কারণে এগুলো পেটের ব্যথা কমাতে সহায়তা করতে পারে। এ ছাড়া এটি বমি ভাব ও ডায়রিয়াতেও উপকারী হিসেবে কাজ করে।

৩. ভাত : ভাবে কোনো মশলা বা লবন থাকে না। তাই এটি পেটের ব্যথা থাকলে তা নিরাময়ে সহায়তা করতে পারে। পেটে ব্যথা হলে ভারি ও বেশি মশলা জাতীয় খাবার পরিহার করে একটু নরম করে ভাত খেতে পারেন। আর চেষ্টা করবেন এর সঙ্গে একটু হালকা ও পাতলা জাতীয় কিছু খেতে।

৪. টোস্ট : টোস্ট বিস্কুট বা ওভারকুক করা রুটি পেট ব্যথা কমাতে সহায়তা করতে পারে। এতে তেমন কোনো তেল থাকে না। আর এ ছাড়া একটু পোড়া রুটি বা টোস্ট বমি ভাব কমাতেও সহায়তা করে।

৫. পুদিনা পাতা : পেটের ব্যথা ও বমি ভাব কমাতে এবং পেট খারাপের জন্য অনেক সহায়ক একটি প্রাকৃতিক সমাধাণ হচ্ছে পুদিনা পাতা। এটির প্রকৃতিক ব্যথানাশক বৈশিষ্ট রয়েছে। তাই পেট ব্যথা কমানোর প্রাকৃতিক সমাধাণ হিসেবে চায়ের সঙ্গে বা চিবিয়ে পুদিনা পাতা খেতে পারেন।

৬. অ্যাপেল সিডার ভিনেগার : অ্যাপেল সিডার ভিনেগারে অ্যাসিড স্টার্চ থাকায় তা হজম করতে সাহায্য করে অন্ত্রের ব্যকটেরিয়াকে সুস্থ রাখে। আর এ কারণে এটি পেটের ব্যথা কমাতে সহায়তা করতে পারে।
এর জন্য এক কাপ পানিতে এক চামুচ অ্যাপল সিডার ভিনেগার ও এক চামুচ মধু মিশিয়ে পান করলে উপকার পাবেন।

৭. হিটিং প্যাড : পেটের ব্যথা কমাতে পেটে হালকা গরম করার মতো হিটিং প্যাড ব্যবহার করতে পারেন। এটি যে কোনো ধররনের ক্রাম্পিং বা ব্যথা নিরাময়ে অনেক উপকারী ভূমিকা পালন করে। পাশাপাশি এটি বমিভাব কমাতেও সহায়তা করে। এর জন্য আপনি গরম পানির ব্যাগ বা বোতলে হালকা গরম পানি নিয়ে পেটে ধরে রাখলেই অনেকটা স্বস্তি পাবেন। তবে এট খুব বেশি সময় ও অতিরিক্ত পরিমাণে ব্যবহার করবেন না। অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে তা ত্বকের ক্ষতি করতে পারে।

হঠাৎ পেট ব্যথা হলে করণীয়

পেটে ব্যথা একটি দৈনন্দিন স্বাস্থ্য সমস্যা। আমরা অনেকেই এতে আক্রান্ত হয়ে থাকি। পেটে ব্যথা হলে আসলে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। পেটে ব্যথার ধরন অনুযায়ী এবং পেটের কোন জায়গায় এটি রয়েছে, তার ওপর ভিত্তি করে চিকিৎসা হয়ে থাকে। সাধারণ কিছু পেটে ব্যথার কারণ হচ্ছে অ্যাসিডিটি বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা। এ ছাড়া গলসস্টোন হলে, কারও কিডনিতে স্টোন হলে বা অ্যাপেনডিসাইটিসের ব্যথা হলে পেটে ব্যথা হয়। কারও কারও মূত্রনালীতে ইনফেকশন হলে পেটে ব্যথা হতে পারে।

অ্যাসিডিটির ব্যথাটা হয়ে পেটের ওপরের দিকে, গলসস্টোনের ব্যথা হয় পেটের ওপরের ডান পাশের পাঁজরের নিচে এবং অ্যাপেনডিসাইটিসের ব্যথা হয় পেটের ডাক দিকের নিচে ও মূত্রাশয়ের ব্যথা হয় পেটের নিচের দিকে। এ রকম অনেকগুলো বিষয় আছে, যেগুলো আমরা লক্ষ করলেই বুঝতে পারব ব্যথাটি কী কারণে হচ্ছে। আমাদের যদি অ্যাসিডিটির সমস্যা থেকে থাকে, যেটি আমাদের একটি অতি সাধারণ সমস্যা, সে ক্ষেত্রে আমরা সাথে সাথে একটি অ্যাসিডিটির ওষুধ খেয়ে নেব এবং কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে দেখব যে সেখানে কোনো অসুবিধা হচ্ছে কি না, কিংবা উপশম হচ্ছে কি না। সাথে যদি বমি থাকে, কিংবা পেটের ব্যথা যদি তীব্রভাবে বাড়তে থাকে এবং সেটি যদি ভিন্ন কোনো জায়গায় হয়, সে ক্ষেত্রে অবশ্যই ব্যক্তিগত চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। অথবা নিকটস্থ হাসপাতালে যেতে হবে।

প্রচন্ড পেট ব্যথা হলে করণীয়

প্রচন্ড পেট ব্যথা হলে – 

  • পেপটিক আলসার বা গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা সাধারণত পেটের ওপর দিকে মাঝখানে শুরু হয়। এটি খালি পেটে বাড়ে, কখনো চিনচিনে, কখনো জ্বালাপোড়ার মতো মনে হয়। এর সঙ্গে বমিভাব, টক ঢেকুর, পেট ফাঁপা ইত্যাদি থাকতে পারে। অ্যান্টাসিড বা অন্য গ্যাস্ট্রিকের ওষুধে বেশ উপশম মেলে।
  • একই জায়গায় বা একটু বাঁ দিকে অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ হতে পারে। কিন্তু এই ব্যথা প্রচণ্ড তীব্র, পেছন দিকেও অনুভূত হয়। রোগী ব্যথায় কুঁকড়ে যায়। সামনে ঝুঁকে থাকলে আরাম মেলে। সঙ্গে বমি থাকতে পারে।
  • ওপরের পেটের ডান দিকে ব্যথা হতে পারে পিত্তথলিতে প্রদাহ বা পাথর থাকলে। এই ব্যথাও ডান দিকে পেছন পর্যন্ত ছড়ায়, সঙ্গে বমি হতে পারে। বিশেষ করে চর্বিযুক্ত খাবার খেলে এটি বাড়ে। যকৃতের প্রদাহেও একই জায়গায় ব্যথা হয়। চিনচিন করে ব্যথা, সঙ্গে জ্বর, জন্ডিস, অরুচি ইত্যাদি হেপাটাইটিস বা যকৃতে প্রদাহ নির্দেশ করে। যকৃতে ফোঁড়া হলে এই ব্যথা তীব্র হয়, সঙ্গে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর।

পেট ব্যথা হলে করণীয় কি

যদি গ্যাসের কারণে পেটে ব্যথা মনে করেন এবং এর সঙ্গে অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ লক্ষণগুলো প্রকাশ না হয়, তাহলে গ্যাসের ওষুধ দিতে পারেন। সিরাপ দিতে পারেন। ব্যথা কমানোর জন্য অনেক ওষুধ আছে সেগুলো দিতে পারেন। তবে নিশ্চিত হতে হবে আপনার ঝুঁকির বিষয়গুলো হয়নি। হঠাৎ করে সমস্যা হয়েছে কি না, বমি হয়েছে কি না, জ্বর আছে কি না এই বিষয়গুলো সঙ্গে না থাকলে খুব চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। প্রাথমিকভাবে চিকিৎসা করলেই হয়।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “পেট ব্যথা হলে করণীয়”

Your email address will not be published. Required fields are marked *